Home » গৃহ লক্ষ্মীর হাতে নতুন রূপ পাচ্ছে সরস্বতী প্রতিমা

গৃহ লক্ষ্মীর হাতে নতুন রূপ পাচ্ছে সরস্বতী প্রতিমা

সময় কলকাতা ডেস্কঃ “কথায় বলে রুপে লক্ষ্মী গুনে স্বরসতী” । বালুরঘাট শহরের মৃৎশিল্পী উত্তম পালের বাড়িতে রয়েছে এমনই দুই লক্ষী । আর সেই দুই লক্ষ্মীর হাতেই ধীরে ধীরে রূপ পাচ্ছে অসংখ্য সরস্বতীর মৃন্ময়ী মূর্তি । উত্তম বাবুর দুই মেয়ে উমা পাল ও উর্মি পাল । উমা ব্যাঙ্গালোর থেকে থার্ড ইয়ার নার্সিং করছে । আর উর্মি পড়ে ক্লাস টেনে । বালুরঘাটের বিশিষ্ট এই মৃৎশিল্পের কাছে অনেক উদ্যোক্তাই তাদের প্রতিমা বানানোর বরাত দিয়েছেন । পাশাপাশি অসংখ্য বাড়ির প্রতিমা তৈরি হয় উত্তম বাবুর হাতেই । তাই প্রতিমা তৈরীর চাপ থাকে প্রতিবারই । অনেক সময় দেখা যায় যে স্বামীর কাজে সঙ্গ দিচ্ছেন স্ত্রীও । কিন্তু কন্যারাও যে পিছিয়ে নেই উমা ও উর্মি তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ ।

 

ছোটবেলা থেকেই এই দুই বোন মূর্তি তৈরির কাজে হাত লাগিয়ে বাবাকে সাহায্য করে । এই বছরও ব্যাঙ্গালোর থেকে সরস্বতী মূর্তি তৈরিতে সাহায্য করতে বাড়ি এসেছে উমা । উত্তম বাবুর বাড়িতে দেখা গেল দুই মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে উত্তমবাবু শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে ব্যাস্ত । ৫ তারিখ সরস্বতী পুজোর আগে থেকেই শুরু হয়ে যাবে বিকিকিনি । দেবীর রং করা থেকে দেবীর সাজসজ্জা  নিজেদের হাতে তুলে নিয়েছে দুই বোন ।

উর্মির জানায় ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকে  সে বাবাকে সাহায্য করে চলেছে । প্রতিমা তৈরি সমস্ত কাজই সে বাবার কাছ থেকে রপ্ত করে নিয়েছে । বাঁশবাঁধা থেকে প্রতিমা তৈরি করা, রং করা থেকে সাজসজ্জা সবকিছুই করতে পারে । আগামী দিনে সে বাবার এই পেশাকে নিজের পেশা হিসেবে গ্রহণ করতে চায় বলে জানিয়েছে উর্মি ।

উত্তমবাবু জানান, অনেকেই বলে মেয়ে মানেই টেনশন । তাঁর মেয়েরা তার কাছে দশটি ছেলের সমান । উত্তম বাবুর দুই মেয়ে ২০ জন ছেলের কাজ দুজন মিলে করছে বলে গর্বের সাথে জানান উত্তম বাবু । রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প কন্যাশ্রী মাধ্যমে যখন মেয়েদের স্কুল ছুটের সংখ্যা অনেকটাই কমেছে । কমেছে বাল্যবিবাহের সংখ্যাও । তখনই উমা ও উর্মির মত শতসহস্ত্র কন্যারা এই ভাবেই বাংলায় নতুন যুগের সূচনা করে চলেছে । যখন গোটা দেশে মেয়েদের উপর অত্যাচারের অসংখ্য নজির দেখা যাচ্ছে তখন বাংলার এই ছোট-ছোট নজির গুলোই বাংলার মুখ উজ্জ্বল করেছে।

About Post Author